ঘোলের শরবত ? নাকি লোস‍্যি ?

0
লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 11
    Shares

ভারতবর্ষ এক জন্মে দেখা সম্ভবনা অসম্ভব। এটা কথার কথা নয় সত‍্যি বাস্তব। আমাদের ভারতবর্ষে যে কতো কিছু দর্শনীয় স্থান আছে এবং প্রত‍্যেকটা স্থান বিশেষে তাদের ভাষা, সংস্কৃতি, পোশাক পরিচ্ছেদ, খাবার এর প্রকারভেদ বেশ লোক্ষ‍্য করা যায়। যেমন দক্ষীনে ইডলী, ধোসা, বা সাম্বার বড়া আবার উত্তরে ছোলাবাটারা বিরিয়ানি, পশ্চমীম ভারতে ঢোকলা, উপ্পম বিখ‍্যাত আবার পূর্বে বিরিয়ানি , পোলাও বিখ‍্যাত। এমনি বহু খাবার নানান প্রান্তে ভারতে আমরা দেখতে পাই। সেই প্রত‍্যেকটা খাবার বহনকরে তাদের ইতিহাস, ভৌগলিক গঠন ও তাদের পরিবেশ এবং আবোহাওয়া সম্পকীয় তথ‍্য যা আমাদের বিস্তারিত ভাবে বোঝাতে সাহায‍্য করে। তার মধ‍্যে লোস‍্যি একটা ভারতীয় উপোমহাদেশে একটা বিখ‍্যাত পানীয়। তাই আমি লোস‍্যি নিয়ে আজ আমি কিছু বলতে চাই।

লোস‍্যি, পাজ্ঞাব (Punjab) রাজ‍্যের বিখ‍্যাত একটা পানীয়। বাংলাতে আমরা যা ঘোল বলে চিনি। সাধারনতো লোস‍্যি বা ঘোল সাদা টক দোই দিয়ে তৈরি হয়। যেহেতু পাজ্ঞাবে (Punjab) প্রচন্ড গরম পরে এবং ওখানকার জীবন যাপনে যেহেতু প্রচুর মোষ প্রতীপালন করা হয় তাই ওখানে দুধের উৎপাদনের পরিমান বেশ অনেকটাই হয়। তাছারা পাজ্ঞাবীরা (Punjabi) প্রচন্ড দুধ খেতে ভালোবাসে এবং এই ভালোবাসাই তাদের দেহে সিংহের মতো শক্তি এবং সাহোস যোগায় , যার জন‍্য তারা আমাদের দেশকে রক্ষা করতে বার বার এগিয়ে আসে। যার প্রমান দেওয়ার আমার দরকারনেই। আমি সেইসব বীর সৈনিক পাজ্ঞাবীদের (Punjabi) কাছে কৃতজ্ঞ যারা তাদের প্রান দিকে আমাদের দেশকে রক্ষা করেছে এবং আজো যারা সীমান্তে আমাদের দেশকে বাইরের শত্রুদের হাত থেকে রক্ষা করছে।

এই লোস‍্যি গোটা ভারতীয় উপোমহাদেশে বেশ বিখ‍্যাত। তবে বর্তমানকালে সময়ের পরির্বতননুসারে দোইএর লোস‍্যি ছারাও আমের লোস‍্যি, তরমুজের লোস‍্যি এমন নানান রকুমারি লোস‍্যির উদভাবন ঘটছে। কিন্তু যে যাই বলুক ওই মালাই দেওয়া লোস‍্যির সামনে অন‍্য কোন লোস‍্যির জবাব নেই।

বার্ণপুরের সাথে লোস‍্যির সম্পর্ক:-
বার্ণপুরের লোস‍্যির জাতিই আলাদা। অবশ‍্যোই লোস‍্যি যদি পান করতে হয় তাহলে পাজ্ঞাবে (Punjab) যাওয়া চাই কিন্তু বার্ণপুরের লোস‍্যির স্বাদ ও মর্জাদাই আলাদা। বার্ণপুরে কোর্টের কাছে বহু লোস‍্যির দোকান আছে তবে জীতেনের লোস‍্যির নাম এই বার্ণপুর শহরে বিখ‍্যাত বলা যায় জনে জনে। কিন্তু কাল পরির্বতনুসারে আরো অনেক লোস‍্যির দোকান আমরা দেখতে পাই। কাজু, কিশমিষ, করমচা, নারিকেল এবং নারীকেল গুরো আর দোইএর মালাই বা দোইএর ছাঁচ এর সাথে এমন সুন্দর ভাবে তৈরি করে যে একবার দেখবে তার লোভ তাকে বারবার বার্ণপুরের লোস‍্যির দিকে টেনে আনবেই আনবে। আমি বলতে পারি একবার পান করলে তাকে আরেকবার লোস‍্যি টানে আরেক গ্লাস পান করবার জন‍্য।

আসলে কি বলুনতো বার্ণপুরের লোস‍্যির ক্ষেত্রে অল্পতে স্বাদ মেটেনা এ স্বাদের ভাগ হবেনা।
তাহলে চলে আসুন একবার বার্ণপুরের লোস‍্যি পান করতে।

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে এই লেখাটি নেওয়া হয়েছে। এই প্রবন্ধ বা পোষ্ট লেখকের পরিচয় যতটুকু পেয়েছি, লেখার নীচে দেওয়া হয়েছে। যদি কেউ এই লেখাটির লেখকের সন্ধান বিস্তারিত জেনে থাকেন, দয়া করে অবশ্যই জানাবেন। আমাদের email করুন এই ঠিকানায়, i@pagolerprolap.in অথবা লেখার নীচে কমেন্টে করুন।


লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 11
    Shares

★আপনার মূল্যবান মন্তব্য দিয়ে আমাদের পথ চলা ধারাকে অব্যাহত রাখুন★

★ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে কমেন্ট করুন★

Leave A Reply