ভারতীয় নৌবাহিনীতে ট্রেনিং দিয়ে পাইলট/পাইলট (এমআর)/অবজারভার/এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +
  • Government Jobs
  • India

Website Indian Navey

ভারতীয় নৌবাহিনীতে ট্রেনিং দিয়ে পাইলট/পাইলট (এমআর)/অবজারভার/এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার পদে যথাক্রমে ৫, ৩, ৪ ও ৭ জন অবিবাহিত তরুণ-তরুণীকে নিয়োগ করা হবে। জানুয়ারি ২০১৯ কোর্সে ট্রেনিং দিয়ে শর্ট সার্ভিস কমিশনে নিয়োগ। পাইলট (এমআর নয়) পদের জন্য শুধুমাত্র পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমি, এঝিমালা, কেরালায় ট্রেনিং দিয়ে এগজিকিউটিভ ব্রাঞ্চে নিয়োগ করা হবে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অন্তত ৬০ শতাংশ নম্বর সহ যে-কোনো শাখায় বিই/বিটেক/ইন্টিগ্রেটেড ডিগ্রি। যাঁরা চড়ান্ত বর্ষে পড়ছেন তাঁদের ক্ষেত্রে পঞ্চম/(ইন্টিগ্রেটেড হলে) সপ্তম সেমেস্টার পর্য‌ন্ত ৬০ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। এটিসি পদের জন্য স্কুলের দশম ও দ্বাদশ স্তরে ফিজিক্স এবং ম্যাথমেটিক্স বিষয় এবং তাতেও ৬০ শতাংশ নম্বর থাকা চাই। দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় ইংরেজিতেও অন্তত ৬০ শতাংশ নম্বর থাকা চাই। ডিজিসিএ-র বৈধ এবং চালু কমার্শিয়াল পাইলট লাইসেসন্সধারীরা ২-১-১৯৯৪ থেকে ১-১-২০০০-এর মধ্যে জন্মতারিখ হলে পাইলট এন্ট্রিতে আবেদন করতে পারেন।

বয়সসীমা: এটিসি পদের জন্য বয়স হতে হবে ২ জানুয়ারি ১৯৯৫ থেকে ১ জানুয়ারি ২০০০ তারিখের মধ্যে। পাইলট (এমআর) পদের ক্ষেত্রে জন্মতারিখ হতে হবে ২ জানুয়ারি ১৯৯৪ থেকে ১ জানুয়ারি ১৯৯৯ তারিখের মধ্যে। এটিসি পদের ক্ষেত্রে ২ জানুয়ারি ১৯৯৪ থেকে ১ জানুয়ারি ১৯৯৮ তারিখের মধ্যে।

শারীরিক মাপযোগ: পাইলট/অবজারভার পদের জন্য ক্ষেত্রে ন্যূনতম উচ্চতা দরকার ১৬২.৫ সেন্টিমিটার। এটিসি পদের ক্ষেত্রে পুরুষদের ন্যূনতম উচ্চতা দরকার ১৫৭ সেন্টিমিটার, মহিলাদের ১৫২ সেন্টিমিটার। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রার্থীরা উচ্চতায় ৫ সেমি ছাড় পাবেন। সবার ক্ষেত্রেই, ওজন উচ্চতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে। শরীর-স্বাস্থ্যের দিক থেকে এই কাজের উপযুক্ত হতে হবে। দৃষ্টিশক্তি হতে হবে চশমা ছাড়া ৬/৬ ও ৬/৯, চশমা পরে ৬/৬ ও ৬/৬। বর্ণান্ধ বা রাতকানা হলে চলবে না। ডাক্তারি পরীক্ষা হবে নেভির মেডিকেল বিভাগের নিয়মানুযায়ী। প্রাথীদের অবিবাহিত হতে হবে। ট্রেনিং চলাকালীনও বিয়ে করা চলবে না।

বেতনক্রম: র‌্যাঙ্ক অনুযায়ী বেতন দেওয়া হবে। শুরুতে সাব লেফটেন্যান্ট র‌্যাঙ্কে পে স্কেল ১০ অনুযায়ী মূল বেতনক্রম ৫৬,১০০-১,১০,৭০০ টাকা। সঙ্গে ১৫,৫০০ টাকার মিলিটারি সার্ভিস পে। পদোন্নতির পর লেফটেন্যান্ট র‌্যাঙ্কে পে স্কেল ১০বি অনুযায়ী বেতনক্রম ৬১,৩০০-১,২০,৯০০ টাকা। লেফটেন্যান্ট কম্যান্ডার র‌্যাঙ্কে উন্নতি হলে তখন পে স্কেল ১১ অনুযায়ী বেতনক্রম ৬৯,৪০০-১,৩৬,৯০০ টাকা। এরপর কম্যান্ডার র‌্যাঙ্কে পে স্কেল ১২এ অনুযায়ী বেতনক্রম ১,২১,২০০-২,১২,৪০০ টাকা। সবক্ষেত্রেই  অন্যান্য ভাতা ও ওপরের মতো মিলিটারি সার্ভিস পে-ও আছে।

নির্বাচন পদ্ধতি: দরখাস্তের ভিত্তিতে বাছাই করা প্রার্থীদের ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হবে। পাইলট/অবজারভার পদের জন্য ইন্টারভিউ হবে ব্যাঙ্গালোরে, ১৮ মে থেকে ১৮ জুলাই পর্যন্ত। এটিসি পদের জন্য ইন্টারভিউ হবে ব্যাঙ্গালোর/ ভোপাল/ কোয়েম্বাটোর/ বিশাখাপত্তনমে, তার স্থান-কাল যথাসময়ে কললেটারে ও ওয়েবসাইটে জানানো হবে। প্রার্থী বাছাই করা হবে শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে। যদি কোনো প্রার্থীর ভালো নম্বর সহ উচ্চতর শিক্ষা থাকে, সেই যোগ্যতাই বিবেচিত হবে। পাঁচ দিন ধরে ইন্টারভিউ চলবে, সেইমতো তৈরি হয়ে যেতে হবে। প্রথমে স্টেজ-ওয়ানে এক দিন ও তাতে সফল হলে স্টেজ-টুতে চারদিন। ইন্টেলিজেন্স টেস্ট, পিকচার পারসেপশন ও গ্রুপ ডিসকাশনের মাধ্যমে স্টেজ-ওয়ানের প্রার্থী বাছাই হবে। এই পর্বে উত্তীর্ণ না হলে প্রার্থীকে সেই দিনই ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হবে। স্টেজ-টু পর্যায়ে প্রার্থী বাছাই হবে সাইকোলজিক্যাল টেস্ট, গ্রুপ টাস্ক ও ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে। শারীরিক পরীক্ষাও হবে। পাইলট পদের জন্য শারীরিক পরীক্ষার নিয়ম মেনে পাইলট অ্যাপ্টিটিউড ব্যাটারি টেস্টও হবে। আগে কখনও ব্যাটারি টেস্টে অনুত্তীর্ণ হয়ে থাকলে দ্বিতীয়বার আবেদন করা যায় না।

শর্ট সার্ভিস কমিশন: চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হলে, জানুয়ারি ২০১৯ কোর্সে ট্রেনিং দেওয়া হবে। তখন থেকেই নিয়োগ শুরু। পাইলট/অবজারভার পদে শর্ট সার্ভিস কমিশনে ১৪ বছরের জন্য নিয়োগ। এটিসি পদে প্রথমে ১০ বছরের জন্য নিয়োগ হবে। পরবর্তী পর্যায়ে নানা দিক বিচার করে দুটি ধাপে দুবছর করে মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে। সব ক্ষেত্রেই চাকরির শুরুতে দুবছর প্রবেশন পিরিয়ডে থাকতে হবে।

সবাইকেই প্রথমে সাব লেফটেন্যান্ট র‌্যাঙ্কে কেরালার অঝিমালায় ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমিতে ট্রেনিং দেওয়া হবে ২২ সপ্তাহের ন্যাভাল ওরিয়েন্টেশন (এনওসি) কোর্সে। পাইলট পদের ক্ষেত্রে ওই ট্রেনিংয়ে সফল হলে দুই পর্যায়ের ফ্লাইং ট্রেনিং, তাতে সফল হলে ‘উইংস’ সহ পাইলট হিসাবে নিযুক্ত হবেন। অবজারভার পদের ক্ষেত্রে এনওসি ট্রেনিংয়ে সফল হলে এসএলটি (১০) টেকনিক্যাল ট্রেনিং, তারপর অ্যাব-ইনিশিও অবজারভার ট্রেনিং। তাতে সফল হলে ‘উইংস’ সহ অবজারভার হিসাবে নিয়োগ। এটিসি পদের ক্ষেত্রে এনওসি ট্রেনিংয়ে সফল হলে এয়ারফোর্স অ্যাকাডেমি ও বিভিন্ন ন্যাভাল প্রতিষ্ঠানে প্রফেশনাল ট্রেনিং দেওয়া হবে।

আবেদনের পদ্ধতি: আবেদন করতে হবে অনলাইনে। সমস্ত প্রাসঙ্গিক প্রমাণপত্র ও রঙিন পাসপোর্ট ছবি জেপিজি/এফআইটিটি ফর্ম্যাটে স্ক্যান করিয়ে রাখবেন আপলোড করার জন্য। ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ, ২০১৮ ‌পর্যন্ত আবেদন করা যাবে www.joinindiannavy.gov.in ওয়েবসাইটে। হোম পেজে Apply Online Officer বাটনে ক্লিক করে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ফর্ম ফিলাপ করতে হবে। ফর্ম ফিলাপ হয়ে গেলে ভালো করে মিলিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করা হয়ে গেলে আর কোনো বদল করা যাবে না। অনলাইনে ফর্ম জমা দেওয়ার পর সিস্টেম জেনারেটেড অ্যাপ্লিকেশন নাম্বার দেওয়া ফর্ম ডাউনলোড করে এককপি প্রিন্ট-আউট নিতে হবে। সেই প্রিন্ট-আউট এবং সমস্ত নথিপত্র নিয়ে এসএসবি ইন্টারভিউয়ে যেতে হবে। সমস্ত ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য ও নির্দেশ পাবেন উপরের ওয়েবসাইটে।

To apply for this job please visit the following URL: http://www.joinindiannavy.gov.in →

Share.

About Author

আমার নিঃশব্দ কল্পনায় দৃশ্যমান প্রতিচ্ছবি, আমার জীবনের ঘটনা, আমার চারপাশের ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু থেকে লেখার চেষ্টা করি। প্রতিটি মানুষেরই ঘন কালো মেঘে ডাকা কিছু মুহূর্ত থাকে, থাকে অনেক প্রিয় মুহূর্ত এবং একান্তই নিজস্ব কিছু ভাবনা, স্বপ্ন। প্রিয় মুহূর্ত গুলো ফিরে ফিরে আসুক, মেঘে ডাকা মুহূর্ত গুলো বৃষ্টির সাথে ঝরে পড়ুক। একান্ত নিজস্ব ভাবনা গুলো একদিন জীবন্ত হয়ে উঠবে সেই প্রতীক্ষাই থাকি।