আধুনিক জামাইকে লেখা আধুনিক শ্বশুরের একটি চিঠি

0
লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 149
    Shares

আধুনিক জামাইকে লেখা আধুনিক শ্বশুরের একটি চিঠি আমার হাতে এসেছে।

জামাই ষষ্ঠীর আমন্ত্রণ:
আগামী ১৯শে জুন, মঙ্গলবার, জামাই ষষ্ঠীর দিন বেলা দ্বিপ্রহরে প্রচন্ড তাপদাহ মাথায় করে, কাঠফাটা রোদে ঘামিতে ঘামিতে আমাদের বাড়ীতে দ্বিপ্রহারিক আহার করিয়া ব্যধিত করিও।

খাদ্য তালিকা:
শুভ্র দেরাদুন চালের ভাত
কোলাঘাটের ইলিস মাছ ভাজা
লাউ চিংড়ি
ভেটকি পাতুরি
চিতল মাছের মুইঠা
কচি পাঁঠার কসা মাংস
কাঁচা আমের টক
গঙ্গারামপুরের দৈ
নকুরের সন্দেশ
সুরেশের রাবড়ী
বাঞ্ছারামের লেঙচা
আইসক্রিম
বেনারসী পান

এই উপরোক্ত খাবারের ব্যবস্থা করার খুব ইচ্ছে ছিল, কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থায় লাগাতার গভীর রাত অবধি কাজ করায় তোমার শরীর ভাল যাইতেছে না। অার বাইরে যা দাবদাহ তাতে বাজারে যাইবার দুঃসাহস না করাটাই ভালো। আর তুমি নিশ্চয় চাইবে না যে বাজারে গিয়ে আমি আর গরমে রান্না করে তোমার শ্বাশুড়ী মা অসুস্থ হয়ে পড়েন?

তাই সবদিক বিবেচনা করে তোমার শরীর ভাল না হওযা অবধি এই আহারের ব্যাবস্থা স্থগিত রাখা হল। তার পরিবর্তে-

শুভ্র গরম ভাত, আলু সেদ্ধ কাঁচা লঙ্কা ও সরিষার তেল সহযোগে পরিবেশন করা হবে। আমার মেয়ের​ কাছ থেকে জানতে পারলাম এই আহারে তোমার খুব রুচি।
অবশ্য জানি তুমি বারবার বারণ করা সত্ত্বেও নিশ্চয়ই মিষ্টি দৈ, রাবড়ী,মাছ ও ফল ফলাদি নিয়ে আসবে?
তোমার শাশুড়ীমার, বাঞ্ছরামের বেক‘ড রসোগোল্লা, নকুড়ের চকলেট সন্দেশ, পাবদা মাছ বড়ই পছন্দের। এখনতো আমের দাম খুবই কম।

মেয়ের মুখে শুনলাম, তুমি নাকি সন্ধ্যায় আমাদের বেড়াতে নিয়ে যাবে এবং খাওয়াবে ঠিক করেছ।
শাশুড়ীমার ইকো পাকে‘র “একান্তে” বা মনি স্কোয়ারের “ ফ্রেম আন্ড গ্রীল“ খুবই পচ্ছন্দের। তুমি জোর করে আমাকেও নিয়ে যাও বলে না বলতে পারি না।
কিন্তু বাবা, তোমার শরীর ভালো হলে তখন তোমাদের আবার আসতেই হবে। তখন না হয় চারটি ডালভাত খেয়ে যাবে।
শুভেচ্ছান্তে
শ্বশুর মশাই।

——জামাই বাবাজীবনের উত্তর এখনও আসে নাই। উত্তর এলে প্রকাশ করব। প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, জামাই বাবাজীবন কম যান না।

জামাই বাবা জীবন কি চিঠির উত্তর দিল ?

শ্বশুরকে আধুনিক জামাইয়ের উত্তর:

Dear Kaku,
( এখন অনেকে বিয়ের আগের সম্বোধনটাই continue করে)

আপনার চিঠি পেয়ে আমরা দুজনেই আহ্লাদে আটখানা।
এই গরমে বাজার করে আপনি অসুস্থ হন, সেটা সত্যিই আমরা চাইনা। তাই আমি অনলাইনে আপনারা আমাকে যে যে গিফট গুলো দেবেন বলে ঠিক করেছিলেন তার মধ্যে থেকে মাত্র দুটো গিফট আমি বুক করে আপনার ঠিকানায় পাঠিয়ে দিয়েছি। আপনি রিটায়ার্ড লোক, এত খরচ কি করে সম্ভব? তাই মাত্র দুটো জিনিস, দুটোই অবশ্য ব্র্যান্ডেড, আপনার মেয়ে তো আবার ব্র্যান্ডেড ছাড়া কিছু বোঝে না, অনলাইনে কিনে পাঠালাম। একটু দেখে নেবেন। একটা স্যুট আর একটা রিস্ট ওয়াচ; মাত্র 50K।

এই গরমে ভাত ও আলুসেদ্ধ খুবই আরামদায়ক। এরপর দই মিষ্টি হলে সোনায় সোহাগা। তাই বাঞ্ছারামের বেকড রসগোল্লা ও সেন মশাইয়ের দই ও অনলাইনে বুক করে পাঠালাম, ক্যাশ পেমেন্ট করে দিলেই হবে।
আসছে ১৮ শে জুন ঠিক সময়েই পৌছে যাব।
ও বলতে ভুলে গেলাম নিপা ভাইরাসের জন্যে কোনো ফল আর নিয়ে যাব না ; আর ভাগাড় কান্ডে যা সব হল, রেস্টুরেন্ট, হোটেল- ফোটেল নৈব নৈব চ।
তাই বিকেলে বাড়িতে এসি চালিয়ে আমরা জামাই শ্বশুর মিলে সাপ লুডো খেলবো।

অনলাইনের গিফটগুলো ১৯ জুনের আগেই পৌঁছে যাবে, পেয়ে গেলে একটু ফোনে জানিয়ে দেবেন।
পুন ঃ দই মিষ্টি অবশ্য ঐ দিনই যাবে।
প্রণাম নেবেন।
আপনার পুত্রতুল্য জামাই

নিজের সম্পর্কে ঢোল পেটাতে সকলের ভালো লাগে, আমারও ভালো লাগে। 😉 মধ্যবিত্ত বাঙালি আমি, আর পাঁচ জনের মতই জীবন আমার। এই নিরস জিবনে প্রতি মুহূর্তে খুঁজে চলেছি হাস্যরস। আমি শামীম মণ্ডল, শুধু এইটুকুই।


লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 149
    Shares

★আপনার মূল্যবান মন্তব্য দিয়ে আমাদের পথ চলা ধারাকে অব্যাহত রাখুন★

★ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে কমেন্ট করুন★

Leave A Reply