ফ্রেন্ড সার্কল্

0
Share it, if you like it

গতকাল ছিল বন্ধু দিবস। আজ ফেসবুক আবার লেখাটা ফিরিয়ে দিল। অনেকেরই কথা রোজই মনে পড়ে আমার। নাসির কে মনে পড়ে। ক্লাস সিক্স।গ্রীষ্মের ছুটিতে ও আমাকে চিঠি লিখেছিল।হলুদ ১৫ পয়সার পোস্ট কার্ডে। সেদিনটাই বোধহয় পিওন প্রথম আমার জীবনে চিঠি নিয়ে এসেছিল। বন্ধুবরেষু’ সম্বোধনে কী কী সব লিখেছিল ঠিক মনে নেই। কিন্তু ওর বাবা কাঁচ বোতামের একটা সাদা জামা(ইউনিফর্ম) কিনে দিয়েছিল, স্কুল খুললে পরে আসবে–চিঠিতে লেখা ছিল।আমার পরিষ্কার মনে আছে। স্কুলে এক বেঞ্চে বসা, একসাথে ঝাল মুড়ি – প্রগাঢ় বন্ধুত্ব। বছর দশ পর ওর সাথে একদিন দেখা প্লাটফর্মে। ট্রেন আসার অল্প বিস্তর সময়ের ব্যবধানে দু চারটে কথা ব্যস। তারপর বেমালুম দুজনেই সব ভুলে কাজ আর কাজ।আর যোগাযোগ নেই।

মনোজ ছিল বাংলাদেশের। এখানে এসে ভর্তি হয়েছিল।আমরা তখন ১৫-১৬। সেদিন দুজনে স্কুল যাইনি। ও আমাকে ঝুমাদের বাড়ি নিয়ে যায়। ঝুমা ওদের গাছের সব থেকে সেরা দুটো পেয়ারা আমাদের কে দিয়েছিল। মনোজ সেদিন প্রথম ঝুমার হাত ছুয়েছিল। মনোজের সেই শিহরিত আনন্দের ভাগীদার হিসাবে, বন্ধু হিসাবে আমিই ছিলাম।এমনিভাবে অনেকদিন আমার মনোজের একটা জুটি ছিল। মাধ্যমিকের পরথেকে আর কোনদিন মনোজের সাথে দেখা হয়নি।এগুলো কেমন সাবলীল হজম করে নিয়েছি আমরা! আমার গ্রামের একটা রাস্তা পার করে দিত একটা ছেলে স্কুল থেকে ফেরার পথে কিছুটা মাঠ ছিল, সেখানে একদিন বেজি দেখেছিলাম(নেউল)।পাশের গ্রামের ঐ বন্ধুটা আমায় রোজ পার করে দিত। আজকাল ওর সাথে মাঝে মধ্যেই দেখা হয়,কিন্তু বিশেষ কোন কথাই হয়না।সেদিন কিন্তু ও আমার কঠিন বিপদের বন্ধু ছিল।

অনেক বন্ধুর মাঝে আমার আরেক বন্ধু।এই তো হালফিলে ২০০৯-১০ এর। কর্মসূত্রে প্রায় দুবছর একসাথে এক রুমে থাকতাম। শুভজিৎ রায়। অনেক রাত অবধি আমরা কত গল্প করতাম।ওর অনেক ফাইল আমি কমপ্লিট করে দিয়েছি।তারপর সময় আলাদা করে দিল।আমরা মুখ বুজে মেনে নিয়েছি।কেউ কাউকে ফোনও করিনা। এমনই হারিয়ে গেছে জীবনের বিশেষ অতি প্রাণপ্রিয় কত বন্ধু।কত চমৎকার সব স্মৃতি বিস্মৃতির অতল গহ্বরে নিমজ্জিত। এভাবে যদি শৈশব থেকে শুরু করা হয়,তবে কত মধুর বন্ধুত্ব কত্ত কাহিনী, সবার জীবনেই থাকে।

চরৈবতির স্রোতে এমনি কত শত অন্তরাত্মা সবার জীবন থেকে হারিয়েও যায় অজিত, অপু, কালু, জয়ন্ত, রাজু, সাইফুদ্দিন, সিন্থিয়া, শুভ, রামু, আব্বাস, সীমা, প্রশান্ত, প্রিয়া, নিউটন এমনি অজস্র বন্ধু। কিন্তু এটাই ধ্রুব সত্য অনন্ত অবিরাম খুব কম বন্ধুই সেদিনের সেই বন্ধুর মতই বন্ধু হয়ে থাকে।আসলে অবিরাম ব্যস্ত-ক্লান্ত জীবন যাপনে।

বন্ধু একটা চক্র, যার অভিযোজন ঘটে
কালের স্রোতে নতুন নতুন বন্ধু জোটে

-নাজমুল হক

নাজমুল হক

Author’s facebook profile link:

নাজমুল

অন্যান্য লেখা

Leave A Reply