বদলে যাবার আগে – রিভিউ

0
লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 24
    Shares

★বই: বদলে যাবার আগে
★লেখক: মোস্তফা মনোয়ার
★প্রকাশনী: অনিন্দ্য প্রকাশ
★পেজ: ১৬০
★ISBN: 9789845260343

উপন্যাসের মুখ্য চরিত্র পাপ্পু, মাজহার, মৌটুসী, রাত্রি, সোয়াদ, রূপসী। এরা সবাই স্কুল -কলেজে পড়ে। পাপ্পু অনেক ভাল ক্রিকেট খেলে।মাজহার পাপ্পুদের পাড়ার নেতা গোছের একজন আবার সেই সাথে ক্রিকেট টিমেরও ক্যাপ্টেন। একই পাড়ার দুই বান্ধবী মৌটুসী আর রাত্রি। দুজনেই ভয়াবহ সুন্দরী হওয়ায় পাড়ার সব ছেলেরাই তাদের জন্যে পাগল। ঘটনাচক্রে মৌটুসীর ছোট বোন রূপসীকে টিউশন পড়ানোর দায়িত্ব পায় মাজহার। অন্যদিকে রাত্রির জন্যে রোজ সোয়াদ নামের একজন দাঁড়িয়ে থাকে তার বাসার সামনে, যে কিনা আবার তার সহপাঠী।

★প্রিভিউ
-তার মা-বাবার মাঝে অবশ্য মাঝে মাঝে ঝগড়াও হয়,ঝগড়া মানে প্রচণ্ড রকমের ঝগড়া।তখন সোয়াদের খুব খারাপ লাগে,অনেক মন খারাপ হয়,তখন তার সবকিছু মিথ্যে মনে হয়,সে মিথ্যে,তার মা মিথ্যে,তার বাবা মিথ্যে,তার মা-বাবার একে অপরের প্রতি ভালোবাসা মিথ্যে, মারা যেতে ইচ্ছে করে তখন যারা জন্ম দিল তারাই যদি একে অন্যের সাথে এমন করে তাহলে তার বেঁচে থেকে লাভ কী?
-সে অনেক বেশি পড়ালিখা করে আর অনেক বেশি বই পড়ে,উপন্যাস পড়ে,কবিতা পড়ে,গল্প পড়ে।গল্প-উপন্যাস পড়তে গিয়ে কখনো যদি সে দেখে কোনো গল্প-উপন্যাসের নায়িকা দেখতে খারাপ,তখন সে উপন্যাসটা কিংবা গল্পটা দুবার করে পড়ে,গল্প উপন্যাসে দেখতে খারাপ মেয়েদেরও তো কোনো কোনো নায়ক পছন্দ করে,কিন্তু বাস্তবে কি তাকে কোন ছেলে পছন্দ করবে? দুর ছাই! জীবন কি আর গল্প উপন্যাস নাকি? কী যা তা না ভাবে সে!

-আচ্ছা কখনো যদি আকাশে তাকিয়ে দেখি চাঁদটাকে দেখছি না,কী বুঝে নেব?
-বুঝে নেবে সেদিন অমাবস্যা,পরদিন থেকেই চাঁদটা আবার দেখতে পাবে।
মাজহার আর কিছু বলে না। পুরোটা সময় ই কেমন যেন চোখের ভেতর থমথমে মেঘ খেলা করছিল মৌটুসীর,আবেগটা যেন একটু বেশি ই ছিল তার। যেমন তার চঞ্চলতা,তেমন তার আবেগ,কথাও বলে বেশি,রাগও করে বেশি,অল্পতেই যেন খুশি হয়ে যায়,অল্পতেই দুঃখ পেয়ে যায়।কিন্তু মাজহারের সামনে কাঁদেনি মৌটুসী একটু।বাসায় ফিরে আসবার পর সেই মেঘ থেকে যেন বৃষ্টি নেমে আসে হুট করে।কোনো একটা প্রচণ্ড ঝড়ের পূর্বাভাসের মতো।

-আমি আর যাই হই অভিনেতা নই,মিথ্যে ভালোবাসার অভিনয়টা ভালো করতে পারব বলে মনে হচ্ছে না।
মৌটুসির মাজহারের কাছে যা জানার ছিল জেনে নিল সে,তার উত্তর সে পেয়ে গেছে।
-মাঝে মাঝে সোয়াদ ভাবে রাত্রি যদি বেঁচে থাকত তাহলে কি এত দিনে তার সাথে রাত্রির প্রেমটা থাকত?নাকি ভেঙে যেত?

★পাঠপ্রতিক্রিয়া:
উপন্যাসটি আমার আপনার বদলে যাবার আগের দিনগুলো আর সেই সব দিনের প্রেম গুলো নিয়ে মুলত লিখা।উপন্যাসের কোথাও না কোথাও আপনি নিজেকে খুজে পাবেন হয় খুজে পাবেন আপনার ফেলে আসা পুরনো বন্ধু পুরনো স্মৃতি গুলো। সত্য প্রেম, দুঃখ,আনন্দ কিংবা মনের রহস্য নিয়ে উপন্যাসটি। গল্পের কিছু কিছু কাহিনি হুট করেই যেনো নিজের জীবনের সাথেও কোনো এক ভাবে মিলে যায়। তখন ফেলে আসা সময় গুলো যেনো আবার নিজের চোখে ভাসতে থাকে, নিজেই যেনো হয়ে যাই উপন্যাসের কল্প চরিত্রটি।


লেখাটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন
  • 24
    Shares

★আপনার মূল্যবান মন্তব্য দিয়ে আমাদের পথ চলা ধারাকে অব্যাহত রাখুন★

★ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে কমেন্ট করুন★

Leave A Reply