কোমরের ব্যাথা একটি মারাত্নক রোগ, জেনে নিন ব্যাথা কমাতে কি কি করা উচিৎ

0

আমার বন্ধু সোহেল উদ্দীন বিশ্বাস, মাঝে মাঝেই কোমর ব্যাথায় ভোগেন। সোহেলের মত আরো অনেক এরই এ সমস্যা আছে। চলুন দেখা যাক কোমর ব্যাথায় কি কি করনীয়।

কোমরের ব্যাথা একটি মারাত্নক রোগ। সবার মধ্যেই এই রোগ কমবেশি দেখা যায়।অনেক চেষ্টা বা চিকিৎসা করিয়েও অনেকে এর সমাধান পায় না। চিকিৎসার পাশাপাশি এক্ষেত্রে ব্যায়াম যেমন জরুরি, ঠিক তেমনি জরুরি কিছু নিয়ম মেনে চলা। যে নিয়মগুলা মেনে চললে কোমর ব্যাথা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়। কিন্তু অনেকেই আমরা সে নিয়মগুলো জানি না। নিয়মগুলো জানতে হলে এই আর্টিকলেটা আপনার জন্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কারনঃ দীর্ঘসময় ধরে বসে কাজ করার কারনে অথবা নিচু হয়ে ভারী কোন বস্তু তোলার সময় কোমরে ব্যাথা হতে পারে।

প্রতিকারঃ

➢ত্রিশ মিনিটের বেশি একনাগাড়ে কোথায়ও বসে বা দাঁড়িয়ে থাকবেন না। একনাগাড়ে কোথাও দাঁড়িয়ে থাকার দরকার হলে শরীরের ভর এক পা হতে আরেক পায়ে নিন কিছুক্ষন পর পর। প্রয়োজনে একটু বসে বিশ্রাম নিন।

➢চেয়ারে বসার সময় কোমর সোজা রেখে বসুন। এজন্য দু’একটি ছোট কুশন কোমরের নিচের অংশে রেখে বসতে পারেন। এতে কোমর সোজা হয়ে থাকবে।

➢ঘাড়ে ভারী কিছু তোলা থেকে বিরত থাকুন। বেশি দরকার হলে ভারী জিনিসটি শরীরের কাছাকাছি রাখুন; চেষ্টা করুন কোমরে চাপ না লাগাতে।

➢হাঁটু না ভেঙ্গে সামনের দিকে বেশি ঝুকবেন না। দীর্ঘ সময় হাঁটতে হলে মহিলারা হাই হিল পরিহার করুন।

➢মাটি হতে বা নিচ থেকে কিছু তোলার দরকার হলে না ঝুঁকে হাঁটু ভাজ করুন অতঃপর তুলুন।

➢কোথাও বসলে সোজা হয়ে বসুন, ঝুঁকে বসা থেকে বিরত থাকুন। এতে আপনার স্মার্টনেস বৃদ্ধি পাবে আর বাড়বে কনফিডেন্স। পাশাপাশি এতে পেতে পারেন কোমরের ব্যাথা হতে মুক্তি।

➢বিছানায় উপুড় হয়ে শোবেন না। আর ফোম বা নরম স্প্রিং এর গদি যুক্ত বিছানা শরীরের তথা কোমরের জন্য ভাল নয়। পাতলা তোশক ও সমান হলে ভাল হয়।

➢নিয়মিত শারীরিক অর্থাৎ কায়িক পরিশ্রম করুন। শারীরিক শ্রমের সুযোগ না থাকলে ব্যায়াম করুন। হাঁটার যতটুকু সুযোগ আছে কাজে লাগান।

➢বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখুন। পুষ্টিকর খাবার ও পানি পরিমাণ মত খান। কেননা ওজন নিয়ন্ত্রনে থাকলে কোমরে চাপ কম পড়বে।

➢নানাবিধ কাজ করার সময় আমাদের ঝুঁকে কাজ করতে হয় যেমন রান্না, কাটা-কোটা, কাপড়চোপড় ধোয়া, মশলা বাটা, ঝাঁট দেয়া বা চাপকল চাপার সময়। এসব ক্ষেত্রে মেরুদণ্ড স্বাভাবিক রাখুন এবং কোমর সোজা রাখুন।

➢যারা দীর্ঘদিন কোমরের ব্যাথায় ভুগছেন তারা বিছানা হতে উঠার সময় সতর্ক হন। কারন বিছানা থেকে উঠে বসার সময় কোমরের হঠাৎ টান লাগতে পারে।

➢কোমরের ব্যাথা বেশ অস্বস্তিকর ও দীর্ঘস্থায়ী। জীবনে সুস্থ থাকতে সতর্কতার কোন বিকল্প নেই। তাই সতর্ক ও নিয়ন্ত্রিত জীবন পরিচালনা করে সুস্থতা উপভোগ করুন।

ব্যায়াম: কোমর ব্যথার জন্য সবচেয়ে ভাল প্রতিশেধক হ’ল ব্যায়াম। প্রথমে সহজ ব্যায়াম দিয়ে শুরু করুন। প্রতিদিন অল্প অল্প করে ব্যায়াম করুন। এ ক্ষেত্রে নিচের ব্যায়ামগুলো করা যেতে পারে।

১। উপুড় হয়ে শুয়ে পড়ুন। হাত দু’টি পাশে রেখে দিন। ২-৩ মিনিট রিলাক্স করুন।

২। কনুইয়ের ওপর ভর দিয়ে শরীরের উপরের অংশ আস্তে আস্তে উপরে তুলুন। ২-৩ মিনিট এভাবেই থাকুন।

৩। উপুড় হয়ে শুয়ে পড়ুন। হাতের তালুর উপর ভর দিয়ে শরীরের উপরের অংশ আস্তে আস্তে উপরে তুলুন। এভাবে ২-৩ মিনিট থাকুন। আবার আস্তে আস্তে সোজা হয়ে শুয়ে পড়ুন।

ওজন নিয়ন্ত্রণ- শারীরিক ফিটনেস যে কোন বয়সের জন্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর কোমরে ব্যাথা নিরাময়ের ক্ষেত্রে এটা অনস্বীকার্য। অতিরিক্ত ওজন বা মেদ ভুঁড়ি আপনার মেরুদণ্ডের নিচের দিকে চাপ সৃষ্টি করে এবং যার ফলে ব্যাথা অনুভূত হয়। স্বাস্থ্যকর ফল, শাকসবজি ও পরিমিত খাবার দাবার আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে এবং আপনার কোমরকে শক্তিশালী রাখবে।

এছাড়াও শক্ত বিছানার ব্যবহার, ইয়গা অনুশীলন, প্যান্টের পিছনের পকেটে মানিব্যাগ ভারী করে না রেখে আপনি কোমর ব্যথার সমস্যা থেকে নিরাময় পেতে পারেন।

Share.

About Author

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে এই লেখাটি নেওয়া হয়েছে। এই প্রবন্ধ বা পোষ্ট লেখকের পরিচয় যতটুকু পেয়েছি, লেখার নীচে দেওয়া হয়েছে। যদি কেউ এই লেখাটির লেখকের সন্ধান বিস্তারিত জেনে থাকেন, দয়া করে অবশ্যই জানাবেন। আমাদের email করুন এই ঠিকানায়, i@pagolerprolap.in অথবা লেখার নীচে কমেন্টে করুন।

Leave A Reply