আজাদ হিন্দ সরকার

0
Share it, if you like it

সময় এসেছে আজাদ হিন্দ ফৌজ ও আজাদ হিন্দ সরকারের সম্পর্কে কিছু জানার।

আজাদ হিন্দ ফৌজ তৈরি হয় ১৯৪২ সালে সিঙ্গাপুরে। জাপানের কারাগারে থাকা ভারতীয় ব্রীটিশ সৈন্য দের নিয়ে। বেশ কিছু ঘটনার মাধ্যমে তা নেতাজির অধিনে আসে। যা পরিচিত হয় নেতাজির Arzi Hukumat-e-Azad Hind বাহিনী নামে।

১/ আজাদ হিন্দ ফৌজ এ্যক্টিভ ছিল আগস্ট ১৯৪২- সেপ্টেম্বর ১৯৪৫ অব্ধি।

২/ গরিলা, ইনফ্যন্ট্রি ও স্পেশাল অপরেশানে দক্ষ এই বাহিনী এক শক্তিশালী রূপে সামনে আসে।

৩/ ৪৩,০০০ সেনা কয়েক মাসে ৯০০০০ সৈন্য বলে পৌছায়। এতে মহিলা ব্রীগেড ছিল তা আপনারা সকলেই জানেন।

৪/ মন্ত্র- “ ঐক্য, বিশ্বাস ও ত্যাগ ”

৫/ মার্চিং স্লোগান- “ কদম কদম বরহায়ে যা”

৬/ ভারতীয়দের অনুপ্রাণিত করতে নেতাজি একটি রেডিও চ্যনেল খোলে। তার নাম ছিল “আজাদ হিন্দ রেডিও” এখানে ইংরেজী, হিন্দি, বাংলা, মারাঠি, পাঞ্জাবি, পেস্তু, উর্দু ভাষায় প্রচারিত হত খবর।

৭/ আজাদ হিন্দ ফৌজের প্রধান হওয়ার পরই জাপান অধিকৃত আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপ আজাদ হিন্দ ফৌজ এর হাতে তুলে দেয়। এর নতুন নাম হয় “শহীদ” ও “স্বরাজ” দ্বীপ। একদিন অবশ্যই এই নামেই পরিচিত হবে এই দ্বীপ গুলি।

৮/ “ তোমরা আমাকে রক্ত দাও। আমি তোমাদেয় স্বধীনতা দেব। ”- এই উক্তিটি যথেষ্ট ছিল তৎকালীন ইস্ট ইন্ডিয়া কম্পানির রাতের ঘুমের ১৪টা বাজানোর জন্য। তখন মাউন্ট ব্যটন রাতে তখন নেতাজীকে নিয়ে দুঃস্বপ্ন দেখতো।

৯/ একটা “দিল্লী চলো” আওয়াজে হাজার হাজার সৈন্যের গলার আওয়াজ প্রবল হুংকারে পরিনত হত।

১০/ আজাদ হিন্দ ফৌজ প্রথম স্থানীয় সৈন্যদল ছিল যারা ব্রীটিশকে পরাজিত করতে পেড়েছিল। আন্দামান ও নিকোবরের পর ইম্ফল ও কোহীমা উদ্ধার করে নেতাজি। স্বধীন ভারতীয় ভূখণ্ড ওড়ে তীরঙ্গা।

১১/ প্রথমে নেহেরু আজাদ হিন্দ ফৌজের বিপক্ষে দাড়ায় পরে অনেক স্বার্থে তিনি আজাদ হিন্দ ফৌজের ডিফেন্সিভ উকিলের পদে বসে।

১২/ যখন ব্রীটিশ ভারত ছাড়ে তখন নতুন ভারতীয় সেনায় একজন আজাদ হিন্দ ফৌজের জোয়ানকে যুক্ত হতে দেয়নি নেহেরু।

১৩/ নেতাজির সাথে বিরোধিতা থাকার পরও শেষে গান্ধিজীও আজাদ হিন্দ ফৌজের প্রশংসা করে বলেন “You have achieved a complete unity among the Hindus, Muslims, Parsis, Christians, Anglo-Indians and Sikhs in your ranks. That is no mean achievement,”

১৪/ আজাদ হিন্দ ফৌজের সরকারের নাম ছিল আজাদ হিন্দ সরকার। এই সরকারকে স্বকৃতি দেয় জার্মানি সহ ১১টি দেশ। এই সরকারে ছিল নিজের মূদ্রা, ডাক টিকিট, মন্ত্রালয়, ব্যংক। নেতাজি একাই ছিলেন এই সরকারের প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রী ও বিদেশ মন্ত্রী।

ছবি ও তথ্যে: ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ

অজানা লেখক

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে এই লেখাটি নেওয়া হয়েছে। এই প্রবন্ধ বা পোষ্ট লেখকের পরিচয় যতটুকু পেয়েছি, লেখার নীচে দেওয়া হয়েছে। যদি কেউ এই লেখাটির লেখকের সন্ধান বিস্তারিত জেনে থাকেন, দয়া করে অবশ্যই জানাবেন। আমাদের email করুন এই ঠিকানায়, i@pagolerprolap.in অথবা লেখার নীচে কমেন্টে করুন।

অন্যান্য লেখা

Leave A Reply